রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৬:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
লালমনিরহাটে করোনা আক্রান্ত হয়ে ইউনিয়ন পরিষদের সচিবের মৃত্যু টেকেরহাট বন্দরে প্রায় ৫ মাস যাবত এই ছেলেটির কোন ওয়ারিশ পাওয়া যাচ্ছে না মাদারীপুরে বাহাউদ্দিন নাছিম ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে ফ্রি অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ মাদারীপুর জেলা ক্রাইম রিপোটার্স এসোসিয়োসনের লকডাউন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ঈদ পরবর্তি শুভেচ্ছা বিনিময় যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ থেকে আরও পোশাক কিনতে আগ্রহী  পরকীয়ায় বেশি ‘মজা’ পায় নারীরা! ঝিনাইদহে শহরে কঠোর, গ্রামে ঢিলেঢালা ভাবে চলছে লকডাউন, মানা হচেছ না স্বাস্থ্যবিধি ঝিনাইদহে ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৬, আক্রান্ত ২৭৯ জন লালমনিরহাটে পরকিয়ায় স্বামী হত্যার অভিযোগ নড়াইল দেড় কেজি গাজা মোটর সাইকেল নগদ টাকা সহ মাদক ব্যাবসায়ী আটক  
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: [email protected]

পিরোজপুরের নেছারাবাদে সংখ্যালঘু পরিবারের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অভিযোগ

Reporter Name
Update : শনিবার, ২২ মে, ২০২১, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন

পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুর জেলার নেছারাবাদ উপজেলায় একটি সংখ্যালঘু পরিবার কর্তৃক এক মুসলিম পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের ও নানাভাবে হয়রানী করাসহ তাদের ক্রয়কৃত ভুমিতে মন্দির স্থাপন করে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে এলাকায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের পায়তারার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার পিরোজপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী মুসলিম পরিবারের পক্ষে উপজেলার সেহাঙ্গল গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আব্দুল মজিদ খান লিখিত বক্তব্যে একই গ্রামের মৃত কুমুদ বিহারী মন্ডলের পুত্র-কন্যা নিরঞ্জন মন্ডল ও মিনতি রানী মন্ডলের বিরুদ্ধে ওই অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে মজিদ খানের অভিযোগ ১৯৯১ সালে কুমুদ বিহারীর কাছ থেকে তার স্ত্রীর ক্রয়কৃত ৫৫ শতক ভুমিতে যাতে দখলে যেতে না পারে সেজন্য মিনতি রানী তার ভাই মনোরঞ্জনের স্ত্রীকে বাদী করে মজিদ খানসহ ১২ জনের বিরুদ্ধে মনোরঞ্জনকে অপহরণ করা হয়েছে বলে জিআর ৬/৯৪ নং মামলা, মিনতির বোন আরতি মন্ডলকে অপহরন করা হয়েছে বলে মিনতি বাদী হয়ে জিআর ১০০/৯৫ নং মামলা ও মিনতিকে শ¬ীলতা হানি করা হয়েছে এমন অভিযোগে সিআর ১৫৯/৯৪ নং মামলা করেন। মিনতির ভাই মনোরঞ্জন ২০০৫ সালে ৪৯ শতক ভুমি মজিদ খানের ছেলে জামাল খানের কাছে বিক্রি করলে ওই দলিল জাল উলে¬খে মিনতি তার অপর ভাই নিরঞ্জনকে দিয়ে মজিদ ও তার ছেলে জামালের বিরুদ্ধে ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জিআর ১৬/১০ এবং দেওয়ানী আদালতে দেং ৮/১০ নং মামলা করেন। বিচারে ফৌজদারী মামলাগুলো মিথ্যা প্রমানিত হলে আসামীরা খালাস পায়।

ওইসব মিথ্যা মামলায় খালাস পাওয়ার পর মজিদের স্ত্রী ও পুত্রের ক্রয়কৃত ভুমিতে মিনতি একটি মন্দির স্থাপনের পায়তারায় লিপ্ত রয়েছে বলে আঃ মজিদ তার লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন। তিনি তার অভিযোগে বলেন তার বিরুদ্ধে মিনতি ওই মিথ্যা মামলাসহ তাকে ও তার পরিবারকে নানাভাবে দু’যুগেরও বেশী কাল ধরে হয়রানী করে আসতে থাকলেও দৈনিক সমকাল পত্রিকায় তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগে খবর প্রকাশিত হয়েছে।

এব্যাপারে মিনতির সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি স্বীকার করেন তাদের দায়েরকৃত ফৌজদারী মামলায় মজিদসহ সকল আসামী খালাস পায়। তবে তিনি জানান দেওয়ানী মোকদ্দমাটি বিচারাধীন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host