রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৫:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম
ঝিনাইদহে এক স্কুল শিক্ষকের মৃত্যু নিয়ে রহস্য, স্বর্পদংশনে বলে প্রচার ঝিনাইদহে রেললাইন ও মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন পিরোজপুরে সংবাদ সম্মেলনে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মহিউদ্দিন মহারাজ মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করলেন  খুলনার গৃহবধূ  রহিমা ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে জীবিত উদ্ধার কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীর দুধকুমার নদ থেকে বালু উত্তোলনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও সমাবেশ যুক্তরাষ্ট্রের ডলারই সবচেয়ে বড় অস্ত্র পত্নীতলায় প্রতিবেশীর আঘাতে আহত ব্যক্তির মৃত্যু মহেশপুরের কোদলা নদীতে চলছে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন কুড়িগ্রামের উলিপুরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে ব্যবসায়ীকে জখম করে টাকা লুট ফরিদপুরের মধুখালীতে মিনা দিবস  পালিত 
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: [email protected]

কুুড়িগ্রামের উলিপুরে তিস্তা নদীর অব্যাহত ভাঙনে ৩টি গ্রাম নদী গর্ভে বিলিন 

হাফিজ সেলিম, কুড়্রিগ্রাম
Update : শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ৯:৫৩ পূর্বাহ্ন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ  চারদিন থাকি এটে (খোলা মাঠে) পরি আছি। গরীব মানুষ জায়গা নাই কোটে যাই। আজকে বজরা বাজারের বাসিন্দা দুর সম্পর্কের জ্যাঠাতো ভাই টিটু মিয়া তার খুলিত (আঙিনায়) ঘর তোলার অনুমতি দিছে। দেখি ওটে যায়া আপাতত উঠি, তারপর মাবুদ দেখপে।’ চোখের পানি মুছতে মুছতে এভাবেই কথা গুলো বলছিলেন কালপানি বজরা এলাকার জহুর ব্যাপারীর ছেলে মোজাম্মেল হক (৬৫)। তার মত অনেকেই হারিয়েছে বাড়ি-ঘর ও ফসলি জমি।
কুড়িগ্রামের উলিপুরে তিস্তা নদীর ভয়াবহ ভাঙনের মুখে পরেছে মানুষজন। সম্প্রতি কয়েকদিনে তিস্তা নদীর তীব্র ভাঙনের কবলে পড়ে ৩টি গ্রাম নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে। নদী গর্ভে চলে গেছে ১ কিলোমিটার পাকা সড়ক, একটি কমিউনিটি ক্লিনিক, দুটি মসজিদ, একটি মন্দির, ঈদগাহ মাঠ, বজরা পশ্চিমপাড়া দাখিল মাদরাসা, পুরাতন বজরা বাজার ও একটি বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও প্রায় আড়াই শতাধিক বাড়িঘর।
সরেজমিন উপজেলার বজরা ইউনিয়নের তিস্তা নদীর ভাঙন কবলিত সাতালস্কর, কালপানি বজরা ও পশ্চিম বজরা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষজন তাদের শেষ সম্বল ঘর-বাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নিচ্ছেন। আবাদী জমি ও ঘর বাড়ি হারিয়ে অনেকেই নিঃস্ব হয়েছেন।
এলাকাবাসী আব্দুল কাদের (৬৯), সাইফুল রহমান (৪৯),বায়েজিদ আলম (২৯)সহ অনেকে জানান, গত এক মাস যাবৎ ভাঙন শুরু হয়েছিল বজরা ইউনিয়নের পশ্চিম কালপানি বজরা, সাতালস্কর ও কালপানি বজরা গ্রামে। উত্তরে জজমিয়ার বাড়ী থেকে দক্ষিনে রোস্তম মৌলভীর বাড়ী পর্যন্ত প্রায় দু’কিলোমিটার এলাকা ব্যাপী ভাঙন শুরু হয়েছে। এরমধ্যে গত চারদিনে হঠাৎ করে ভাঙনের তীব্রতার ফলে বজরা পশ্চিম পাড়া দাখিল মাদরাসা, পুরান বজরা বাজার, ২টি মসজিদ, ১টি মন্দির, ২টি ঈদগাহ মাঠ, গাছপালা ও ২ শতাধিক একর ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। তারা আরও বলেন, ভাঙনের তীব্রতা এমনি ভয়াবহ ছিল যে গত মঙ্গলবার কমিউনিটি ক্লিনিক ও অর্ধশতাধিক বাড়ী মুহুর্তের মধ্যে নদী গর্ভে বিলিন হয়ে যায়। কোন রকমে প্রাণ বাঁচিয়েছেন অনেকেই।
বজরা পশ্চিম পাড়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার রেফাকাত হোসেন জানান, প্রায় ২০ বছর ধরে এখানে সুন্দরভাবে মাদ্রাসাটি পরিচালনা করে আসছি। গত পরশুদিন থেকে হঠাৎ করে তিস্তার ভয়াবহ ভাঙনে মাদ্রাসার অর্ধেক চলে গেছে। বাকীটা ভেঙ্গে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি।
বজরা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য এনামুল হক জানান, গত চারদিনে তিস্তা নদীর ভাঙনে সাতালস্কর, কালপানি বজরা ও পশ্চিম বজরা মৌজা নদী গর্ভে চলে গেছে। এছাড়া প্রায় ১ কিলোমিটার পাকা সড়কও নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে। সরকারি কোন সহযোগিতা পাওয়া যায়নি।
বজরা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাইয়ুম সরদার বলেন, নদী ভাঙনের বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত ভাবে অবহিত করলেও কোন কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। ভাঙনে বাস্তুহারা মানুষগুলো কষ্টে দিন পার করছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল কুমার জানান, ওই ইউনিয়নের জনপ্রিতিনিধিদের ভাঙন কবলিতদের দ্রুততম সময়ে তালিকা করতে বলা হয়েছে। তালিকা পেলেই সহযোগিতা শুরু করা হবে। এছাড়াও পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে আমরা ভাঙনের বিষয়গুলো আপডেট করেছি। বাজেট না থাকায় তারা মুভমেন্ট করতে পারছে না বলে জানিয়েছে। আর খোলা আকাশের নিচে কেউ থাকলে সেটা আমার নজরে আসেনি। আমি এখনই ব্যবস্থা নিচ্ছি।
এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গত ২০-২৫ বছর পূর্বে মুল নদীর স্রোত ছিল এই এলাকায়। গ্রামগুলোর উজানে নদী শাসনের ব্যবস্থা নেয়ায় এখানে হঠাৎ করে ভাঙন শুরু হয়েছে। আমরা বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। দ্রুতই ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host