রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৬:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
ব্যবসায়ীরা রুপিতে ভারত থেকে পণ্য আমদানির সুযোগ চান ঝিনাইদহে এক স্কুল শিক্ষকের মৃত্যু নিয়ে রহস্য, স্বর্পদংশনে বলে প্রচার ঝিনাইদহে রেললাইন ও মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন পিরোজপুরে সংবাদ সম্মেলনে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মহিউদ্দিন মহারাজ মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করলেন  খুলনার গৃহবধূ  রহিমা ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে জীবিত উদ্ধার কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীর দুধকুমার নদ থেকে বালু উত্তোলনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও সমাবেশ যুক্তরাষ্ট্রের ডলারই সবচেয়ে বড় অস্ত্র পত্নীতলায় প্রতিবেশীর আঘাতে আহত ব্যক্তির মৃত্যু মহেশপুরের কোদলা নদীতে চলছে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন কুড়িগ্রামের উলিপুরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে ব্যবসায়ীকে জখম করে টাকা লুট
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: [email protected]

পিরোজপুর জেলা পরিষদ নির্বাচনে  চেয়ারম্যান পদে মহিউদ্দিন মহারাজ কে  ৭০৪ জনের সমর্থন 

Reporter Name
Update : শুক্রবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ১১:০৮ পূর্বাহ্ন

পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরে জেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের আনাগোনা বাড়ার আগেই ভোটাররা সমর্থন জানিয়েছেন বর্তমান প্রশাসক ও সদ্য সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: মহিউদ্দিন মহারাজকে। মোট ৭৪৭ জন ভোটারের মধ্যে ৭০৪ জনই জেলা পরিষদের সদ্য সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: মহিউদ্দিন মহারাজের পক্ষে সমর্থন জানিয়েছেন। আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে এ সংক্রান্ত চিঠি পাঠানো হয়েছে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে বলে জানিয়েছেন কয়েকজন উপজেলা চেয়ারম্যান।

আগামী ১৭ অক্টোবর সারা দেশের ন্যয় পিরোজপুর জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। জেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যান ও সদস্য পদপ্রার্থীদের মধ্যে যখন চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে তখনই বিভিন্ন উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভার ভোটারবৃন্দ অনেকেই একাত্ততা প্রকাশ করেছেন সদ্য সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: মহিউদ্দিন মহারাজের পক্ষে। ৭৪৭ জন ভোটারের মধ্যে ৭০৪ জন ভোটারই চান আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন দেয়া হোক তাকে। এ নিয়ে জেলা আওয়ামলীগের মধ্যে কিছুটা মিশ্র প্রতিক্রিয়া থাকলেও অনেকেই আবার মহিউদ্দিন মহারাজের পক্ষে কথা বলেছেন।

নির্বাচনি বিধান অনুযায়ী, সংশ্লিষ্ট জেলার উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা ও সিটি করপোরেশনের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা জেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করে থাকেন। পিরোজপুর-১ সদর আসনের নাজিরপুর উপজেলা পরিষদে ৯ ইউনিয়নে জনপ্রতিনিধি আছে ১২০ জন-সবাই তার পক্ষে স্বাক্ষর দিয়েছেন। নেছারাবাদ উপজেলা পরিষদে ইউনিয়ন ১০টি ও ১টি পৌরসভা। যেখানে মোট ভোটার ১৪৬ জন ভোটারের মধ্যে মহিউদ্দিন মহারাজের পক্ষে স্বাক্ষর করেছেন ১৪০ জন। পিরোজপুর সদর উপজেলায় ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ১০৭ জন ভোটারের মধ্যে সমর্থন করেছেন ৭৯ জন। পিরোজপুর-২ আসন ভাণ্ডারিয়া সদর উপজেলায় ৬টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার ৯২ ভোটারের সবাই সমর্থন করেছেন তাকে। কাউখালী ও ইন্দুরকানী উপজেলায় ৫টি করে ইউনিয়নের ৬৮ জন করে ভোটারের সবাই মহারাজকে সমর্থন জানিয়েছেন। এছাড়া পিরোজপুর-৩ আসন মঠবাড়িয়া উপজেলায় ১১ ইউনিয়নে ১৪৬ ভোটারের মধ্যে ১৩৭ জনই সমর্থন জানিয়েছেন।

মঠবাড়িয়া পৌরসভা থাকলেও সর্বশেষ সংশোধনীয় আইন অনুযায়ী সরকার কর্তৃক পৌর পরিষদ বিলুপ্ত হওয়ায় এখানকার ভোটার সংখ্যা অবশ্য বিবেচনায় আনা হয়নি। পিরোজপুর সদর উপজেলার ২৮ জন, নাজিরপুরের ৬ জন ও মঠবাড়িয়া উপজেলার ৯ জন ছাড়া বাকি ৯৪.২৫ শতাংশ ভোটারই মহিউদ্দিন মহারাজের পক্ষে অগ্রিম সমর্থন জানিয়েছেন।

জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ জানান, আগামী ১৭ অক্টোবর সারা দেশের ন্যয় পিরোজপুর জেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বর্তমান প্রশাসক ও সদ্য সাবেক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো: মহিউদ্দিন মহারাজ একজন স্বচ্ছ রাজনীতিবিদ। তার পক্ষে ব্যাপক জণসমর্থন রয়েছে। তবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যাকে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে সমর্থন দিবেন আমরা তাকে বিজয়ী করতে কাজ করবো।

লিখিত সমর্থনের চিঠি অনুযায়ী, কেন লিখিতভাবে আগেই সমর্থন জানালেন-এমন প্রশ্ন করা হলে নাজিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা অমূল রঞ্জন হালদার বলেন, ‘শুধু জনপ্রতিনিধি না, যে কেউ কোনো সমস্যা নিয়ে গেলে মহারাজ তা সমাধান করে দেন। তাই তাকে সমর্থন দিতে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছি।

জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. এম এ হাকিম হাওলাদার জানান, এই যে ভোটাররা যে লিখিত দিয়েছে এটি আসলে প্রার্থীর জন্য ভালো হয়নি তবে তার  ভোট আছে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করা মত। দল যাকে সমর্থন দিবে আমরা তার পক্ষেই কাজ করবো।

অগ্রিম সমর্থন দেওয়ার বিষয়ে মহিউদ্দিন মহারাজের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ভোটারদের কাছ থেকে এমন ভালোবাসা ও স্বীকৃতি পাওয়া নিশ্চয়ই তার জন্য সৌভাগ্যের। দায়িত্বে থাকাকালে সব সময়ই স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের পরামর্শ নিয়ে কাজ করেছি।

উল্লেখ্য, ছয় বছর আগে ২০১৬ সালের ২৮ ডিসেম্বর প্রথম জেলা পরিষদের ভোট হয়। সেখানে চলি­শ বছর বয়সে তরুণ প্রার্থী হিসাবে স্বতন্ত্রভাবে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন মো. মহিউদ্দিন মহারাজ। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জেলা পরিষদ ফোরামেরও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হচ্ছে দেশের ৬১টি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্য পদে নির্বাচন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host