রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৬:৪০ অপরাহ্ন
শিরোনাম
হেলেনা জাহাঙ্গীর আওয়ামী লীগের পদ হারালেন লালমনিরহাটে করোনা আক্রান্ত হয়ে ইউনিয়ন পরিষদের সচিবের মৃত্যু টেকেরহাট বন্দরে প্রায় ৫ মাস যাবত এই ছেলেটির কোন ওয়ারিশ পাওয়া যাচ্ছে না মাদারীপুরে বাহাউদ্দিন নাছিম ফাউন্ডেশনের উদ্যেগে ফ্রি অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ মাদারীপুর জেলা ক্রাইম রিপোটার্স এসোসিয়োসনের লকডাউন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ঈদ পরবর্তি শুভেচ্ছা বিনিময় যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ থেকে আরও পোশাক কিনতে আগ্রহী  পরকীয়ায় বেশি ‘মজা’ পায় নারীরা! ঝিনাইদহে শহরে কঠোর, গ্রামে ঢিলেঢালা ভাবে চলছে লকডাউন, মানা হচেছ না স্বাস্থ্যবিধি ঝিনাইদহে ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু ৬, আক্রান্ত ২৭৯ জন লালমনিরহাটে পরকিয়ায় স্বামী হত্যার অভিযোগ
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: [email protected]

কেশবপুরে সাপের কামড়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু

আ.শ.ম. এহসানুল হোসেন তাইফুর, কেশবপুর
Update : মঙ্গলবার, ৪ মে, ২০২১, ১:২৫ অপরাহ্ন

আ.শ.ম. এহসানুল হোসেন তাইফুর, কেশবপুর থেকে: যশোরের কেশবপুরে সাপের কামড়ে হানিফ হোসেন (১৭) নামে এক স্কুল ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ইফতারীর পর বন্ধুদের সঙ্গে উপজেলার সুজাপুর গ্রামের মৎস্য ঘেরের বেড়িতে ঘুরতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে। সে পৌরসভার বালিয়াডাঙ্গা এলাকার আলাউদ্দিন মোড়লের একমাত্র ছেলে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, কেশবপুর পৌরসভার বালিয়াডাঙ্গা এলাকার আলাউদ্দিন মোড়লের ছেলে হানিফ হোসেন সোমবার ইফতারীর পর বন্ধুদের সঙ্গে উপজেলার সুজাপুর গ্রামের মৎস্য ঘেরের বেড়িতে ঘুরতে যায়। সেখানেই বিষধর কোনো সাপ তার বাম পায়ে দংশন করে। বিষয়টি গুরুত্ব না দিয়ে ঘুরাঘুরি এক পর্যায় তার শরীরের অবস্থা অবনতি হলে সঙ্গে থাকা বন্ধুরা তাকে স্থানীয় ওঝা খলিলুর রহমানের কাছে ঝাড়ফুঁক করার জন্য নিয়ে যায়। ওই সময় ঝাড়ফুঁকে কোন কাজ না হওয়ায় হানিফ হোসেনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাত ১০ টার দিকে খুলনা সার্জিক্যাল হাসপাতালে নেওয়ার পথিমধ্যে তার মৃত্যু হয়। মৃতের চাচাতো ভাই আব্দুল সাত্তার মিন্টু জানায়, হানিফ হোসেন সোমবার ইফতারীর পর বন্ধুদের সঙ্গে উপজেলার সুজাপুর গ্রামের মৎস্য ঘেরের বেড়িতে ঘুরতে গেলে বিষধর সাপ তার বাম পায়ে দংশন করে। তার সঙ্গে থাকা বন্ধুরা তাকে বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের ওঝা খলিলুর রহমানের কাছে নিয়ে যায়। ওঝার ঝাড়ফুঁকে কোন কাজ না হওয়ায় সেখানেই হানিফ হোসেনের শরীরের অবস্থা অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য পরিবারের সদস্যরা খুলনা সার্জিক্যাল হাসপাতালে নেওয়ার পথিমধ্যে তার মৃত্যু হয়। সে স্থানীয় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণি ছাত্র ছিল। ওঝা খলিলুর রহমান মোবাইল ফোনে জানায়, হানিফ হোসেনকে সম্ভবত রাত পৌন ৯টার দিকে তার নিকট নিয়ে আসে। কিছু সময় পর তার শরীরের অবস্থা অবনতি হলে খুলনা ২৫০ বেড হাসপাতালে বা অন্য কোথাও নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host