মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০১:১৭ পূর্বাহ্ন
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: [email protected]

পলাশবাড়ীতে কম খরচে খিরা চাষে আনন্দে কৃষক

ছাদেকুলইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা
Update : রবিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০২২, ৭:৩৮ অপরাহ্ন

ছাদেকুলইসলাম রুবেল,গাইবান্ধা সংবাদদাতাঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে কম খরচে অধিক লাভের আশায় খিরা চাষে ব্যস্ত সময় পার করছে কৃষকরা। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে খিরা চাষ থাকলেও পলাশবাড়ী উপজেলায় এই ফসল লাভজনক হিসেবে নিতে পারেনি।
তবে উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের ভগবতী পুর গ্রামের মৃত কালু শেখের ছেলে সাজু শেখ জানান, তিনি চার বছর যাবৎ ১৫ শতাংশ জমিতে খিরা চাষ করে আসছেন। আমার এই ১৫ শতাংশ জমিতে নিজের শ্রম ছাড়া খরচ হয় মাত্র দুই হাজার টাকা। প্রতি বছর এই জমি থেকে খিরা তুলতে পারি প্রায় ৬০ মণ। তাতে করে এবার বাজার ভালো থাকায় আমি ৫০ হাজার টাকার কিছু কম বা বেশি পাইতে পারি। আমি প্রথম তোলায় দুই মণ খিরা বাজার নিতে পেরেছিলাম। প্রতি মণ ১ হাজার ২’শ টাকা হিসেবে বিক্রি করতে পেরেছি। আল্লাহর কাছে অনেক শুকরিয়া এই অবস্থা থাকলে আমার লক্ষ মাত্রা পার হয়ে যাবে। উপজেলার মহদীপুর ইউনিয়নের বুজরুক বিষ্ণপুর মৃত ফকর উদ্দিনের ছেলে গনি মিয়া জানান, তিনি প্রতি বছর ২৫ শতাংশ জমিতে খিরা চাষ করেন। এক দিন পর পর ৭/৮ মন খিরা উত্তোলন করতে পারেন। যদি আবহাওয়া ভালো থাকে তাহলে আমি ৮০-৯০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারবো। তবে চিন্তায় আছি রোগবালাই বেশি হওয়ার কারণে ক্ষতির মুখে পরতে পারি। কৃষি প্রণোদনা কিংবা কৃষি অফিস থেকে কোন পরামর্শ পেয়েছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন, আমরা কৃষি  অফিস থেকে কোন পরামর্শ বা সহযোগিতা পাইনি।
এব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা (ভারঃ) সাইফুন্নাহার সাথী জানান, এ উপজেলায় ১৫ হেক্টর জমিতে খিরা চাষ হচ্ছে। খিরা ও শষা চাষে কোন প্রণোদনা নেই। খিরা চাষে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার ব্যাপারে বলেন, খিরা বেশি পানি সহ্য করতে পারেনা। আর এ বছর অকাল বৃষ্টির কারণে খিরার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। আমরা কৃষকদের মাঝে সঠিক পরামর্শ দেওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তবে প্রতিটি কৃষকের কাছে পৌছা সম্ভব হয় না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host