সোমবার, ১৫ অগাস্ট ২০২২, ১২:২১ অপরাহ্ন
শিরোনাম
ডুমুরিয়ার মাদরাসায় বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী পালন প্রধানমন্ত্রী বিরোধীদের আন্দোলনকে স্বাগত জানালেন ফকিরহাটে ১০বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামী গ্রেপ্তার পিরোজপুরে র‌্যাবের অভিযানে ৭৯ ফেনসিডেল সহ এক যুবকে গ্রেপ্তার শৈলকুপায় বাসচাপায় কৃষক নিহত ফরিদপুরের মধুখালীতে সড়ক দুর্ঘটনায় স্কুল ছাত্র নিহত লালমনিরহাটে সাংবাদিকের উপর হামলার মূল আসামি কুড়িগ্রাম রাজারহাট থেকে গ্রেফতার বোয়ালমারীতে মাথায় ডিম ভেঙে বন্ধুর জন্মদিন পালন, ৬ কিশোর আটক জাতীয় শোক দিবস পালনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অর্থ সহায়তা দিলেন ভান্ডারিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মিরাজুল ইসলাম মোহাম্মদপুরে ১৫ ই আগষ্ট উপলক্ষে শিশুদের কবিতা আবৃতি ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: [email protected]

নতুন দুটি কৃষ্ণগহ্বরের সন্ধান

Reporter Name
Update : বুধবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২১, ৪:১৩ অপরাহ্ন

নিউজ ডেস্ক: এ যাবতকালের মধ্যে খুব কাছাকাছি বিশাল আকারের দুটি কৃষ্ণগহ্বরের সন্ধান পেয়েছেন জ্যোতির্বিদরা। এর দূরত্ব মাত্র ৮ কোটি ৯০ লাখ আলোকবর্ষ। এর অবস্থান এনজিসি ৭৭২৭ নামের ছায়াপথে। এর আগে যেসব কৃষ্ণগহ্বর আবিষ্কৃত হয়েছে তার দূরত্ব ৪৭ কোটি আলোকবর্ষ। ফলে নতুন আবিষ্কার করা কৃষ্ণগহ্বর সবচেয়ে কাছের। তবে এই দুটি কৃষ্ণগহ্বর বা ব্লাকহোলের মধ্যে দূরত্ব ১৬০০ আলোকবর্ষ।

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, এই দুটি কৃষ্ণগহ্বর ক্রমশ বড় হবে এবং একটি আরেকটির কাছাকাছি চলে আসছে। একসময় তারা একটি আরেকটির সঙ্গে মিশে যাবে। এর মধ্য দিয়ে দুই কৃষ্ণগহ্বর মিলে একটি বিশাল কৃষ্ণগহ্বরে পরিণত হবে। এই আবিষ্কারের ফলে শুধু এটাই প্রমাণ হয়নি যে, এনজিসি ৭৭২৭ ছায়াপথ এই দুটি ছায়াপথের সমন্বয়ে গড়ে উঠেছে। একই সঙ্গে বিষ্ময়কর সব তথ্য দিচ্ছে যে, কিভাবে বিশাল ভরের ব্লাকহোলগুলো একটির সঙ্গে আরেকটি সংযুক্ত হয়।

ফ্রান্সের স্ট্রাসবোর্গ অবজার্ভেটরির জ্যোতির্বিদ কারিনা ভোগেল বলেছেন, প্রথমবারের মতো আমরা দুটি বিশাল ভরের ব্লাকহোলের সন্ধান পেলাম। তারা একটির খুব কাছে রয়েছে আরেকটি। এর আগের ব্লাকহোল বা কৃষ্ণগহ্বরের মধ্যে মিলিত হওয়ার জন্য যে দূরত্ব বলা হয়েছিল, এদের ক্ষেত্রে সেই দূরত্ব অর্ধেকের কম।

বিশাল ভরের এসব কৃষ্ণগহ্বরের জোড়া নিয়ে জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের আগ্রহের বহু কারণ আছে। বেশির ভাগ ছায়াপথেই পাওয়া যায় বিশাল ভরের কৃষ্ণগহ্বর। এটি থাকে কেন্দ্রে- নিউক্লিয়াসের মতো। আর সবকিছু তাকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হয়। যখন দুটি কৃষ্ণগহ্বর একসঙ্গে দেখা গেছে, তখন এ থেকে ইঙ্গিত মিলেছে যে, দুটি ছায়াপথ একত্রিত হয়েছে। আমরা জানি এ প্রক্রিয়া ঘটমান।

মহাকাশে আমাদের সূর্য্যরে চেয়ে কোটি কোটি গুন ভারি বস্তু আছে। এসব নক্ষত্র বা বস্তু এত অবিশ্বাস্যরকম ভারি কেন হয় তার ব্যাখ্যা করে বিশাল ভরের এমন জোড়া কৃষ্ণগহ্বর। এমন জোড়া কৃষ্ণগহ্বর একটি অন্যটির কাছাকাছি আসতে আসতে তার আকার বৃদ্ধি পেতে থাকে। কিভাবে আকার বৃদ্ধি পায় তা বুঝতে এই ভারি দুটি কৃষ্ণগহ্বর আমাদেরকে সাহায্য করবে। এ থেকে নতুন এবং অধিক নির্ভেজাল মডেল বেরিয়ে আসবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host