মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৬:৩৭ পূর্বাহ্ন
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: newssonarbangla@gmail.com

ভারতে আটকে পড়া শিক্ষার্থীসহ ১২ বাংলাদেশি দেশে ফিরেছে

রকিবুল ইসলাম রুবেল, লালমনিরহাট
Update : শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২১, ৫:০৯ অপরাহ্ন

রকিবুল ইসলাম রুবেল,লালমনিরহাট প্রতিনিধি: ভারতে আটকে পড়া শিক্ষার্থীসহ ১২ জন বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী যাত্রী বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে দেশে ফিরেছেন।
কলকাতার বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশন থেকে অনুমতিপত্র নিয়ে বুড়িমারী চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন দিয়ে তারা দেশে ফেরেন। অপরদিকে
৪ ভারতীয় নাগরিক অনুমতি নিয়ে ভারতে প্রবেশ করেন।
শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) দুপুরের পর ভারতে আটকে পড়া শিক্ষার্থীসহ ১২ জন বাংলাদেশিকে বুড়িমারীতে বিশেষ ব্যবস্থায় কোয়ারিন্টিনে রাখা হয়েছে বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বুড়িমারী ইমিগ্রেশনের ইনচার্জ আনোয়ার হোসন।
বুড়িমারী ইমিগ্রেশন সুত্রে জানা যায়, বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে গত তিনদিনে বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) সন্ধ্যা পর্যন্ত দুই দেশের ১৬ জন যাত্রী পারাপার হয়েছেন। এদের মধ্যে ৪ ভারতীয় নাগরিক অনুমতি নিয়ে ভারতে প্রবেশ করেন। বাংলাদেশ থেকে চিকিৎসার জন্য ভারতের আটকে পড়া ১২ বাংলাদেশি নাগরিকরা বুড়িমারী চেকপোস্ট দিয়ে দেশে প্রবেশ করেন। এদের মধ্যে দার্জিলিং থেকে আসা ঢাকার ৬ শিক্ষার্থী ও চট্রগ্রামের ৩ জন ও রংপুর হারাগাছ এলাকার ৩ জন রয়েছেন। তাদের কে পাটগ্রাম উপজেলা প্রসাশন বুড়িমারী স্থলবন্দরের আবাসিক হোটের সামটাইম এ প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে কোয়ারেন্টাইন রাখা হয়েছে।
বুড়িমারীতে আটকেপড়া যাত্রী জাহিদুল ইসলাম বলেন, ভারতে চিকিৎসার জন্য গিয়ে সেখানে করোনা ভাইরাস বৃদ্ধি পাওয়ায় চিকিৎসা না নিয়ে ফিরত এসেছি। কিন্তু বুড়িমারীতে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে ১৪ দিন আমার তিন জনের পক্ষে থাকা সম্ভব না। হাতে টাকা পায়সাও নেই কিভাবে ১৪ দিন থাকব। আমাদের হোম কোয়ারেন্টিনে দেওয়ার অনুরোধ করছি।
বুড়িমারী ইমিগ্রেশনের ইনচার্জ আনোয়ার হোসন বলেন, যারা ভারতে চিকিৎসার জন্য গিয়ে আটকে পড়েছে শুধু তারাই কলকাতার বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশন থেকে অনুমতি নিয়ে দেশে ফিরছেন। এছাড়া সে সব পাসপোর্টধারী যাত্রীরা দেশে ফিরছেন তাদের বাধ্যতামূলক বুড়িমারী কয়েকটি আবাসিক হোটেলে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হচ্ছে বলে তিনি জানান।
বুড়িমারী স্থল বন্দরের স্বাস্থ্য উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার রাসেল আহম্মেদ জানান, ভারত থেকে আসা বাংলাদেশেী যাত্রীদের করোনা নেগেটিভ সার্টিফিকেট ও শরীরের তাপমাত্রা, ঠান্ডা, কাশি ও এলার্জিজনিত বিষয়গুলো আছে কিনা তা যাচাই করে তাদের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে রাখা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host