বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: newssonarbangla@gmail.com

পিতার অধিকার আদায়ের দাবিতে ঝিনাইদহে ষষ্ঠ শ্রেণীর স্কুল ছাত্রীর সংবাদ সম্মেলন

মোঃ শাহানুর আলম, স্টাফ রিপোর্টার
Update : মঙ্গলবার, ২ মে, ২০২৩, ৬:৩৫ অপরাহ্ন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ নেশাগ্রস্থ মাদাকসেবী পিতা, দাদী এবং সৎ দাদার অত্যাচার নির্যাতন ও প্রাণনাশের হুমকীর বিরুদ্ধে এবং পিতৃত্বের অধিকার আদায়ের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে ষষ্ঠ শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী মারিয়া খাতুন।
গতকাল (১মে) বিকালে ঝিনাইদহ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্টিত হয়। মারিয়া খাতুন ঝিনাইদহ সদর উপজেলার উত্তর নারায়নপুর গ্রামের মেহেদী হাসান বাবু ও রোকসানা খাতুন দম্পত্তির এক মাত্র মেয়ে এবং উত্তর নারায়নপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী। মারিয়া লিখিত বক্তব্যে জানান, আমার পিতা মেহেদী হাসান বাবু নেশাগ্রস্থ মাদকসেবী, দাদী আফরোজা বেগম ও দাদীর দ্বিতীয় স্বামী আমার সৎদাদা পল্লী চিকিৎসক মতিয়ার রহমান মতি আমাকে নিয়ে বিভিন্ন সময়ে জন্মগত কুৎসা রটানোসহ অত্যাচার, নির্যাতন, কুরুচিপুর্ণ এবং আপত্তিকর বিভিন্ন ধরণের অশালীন অপবাদ প্রচার করে আমার পিতৃত্ব পরিচয় অস্বীকার করে এবং আমাকে আমার অধিকার থেকে বঞ্চিত করার জন্য বাড়ি থেকে বের করে দেয়। আমি এই অধিকার ফিরে পেতে সাংবাদিকদের মাধ্যমে প্রশাসনের সহযোগীতা এবং হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
সে লিখিত বক্তব্যে আরও জানায়, আমার বুদ্ধি হওয়ার পর থেকেই দেখে আসছি, আমার বাবা আমার মায়ের উপর শারীরিক ও মানুষিক অত্যাচার নির্যাতন করে আসছে যা বলে প্রকাশ করার মত নয়। আমার বাবা তার মা এবং তার সৎ বাবার কথামত এসব অন্যায় অত্যাচার করে থাকেন। এখন আমাকেও এই নির্যাতনের স্বীকার হতে হচ্ছে। গত সাত মাস যাবৎ অন্য একটি মেয়েকে বিয়ে করে আমার উপর নির্যাতনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয় এবং আমাদের অস্বীকার করে ঝিনাইদহ শহরের বাড়িতে উঠেছে। আমার দাদী আমার বাবাকে কাজ করতে দেয় না, ফলে সে নেশাগ্রস্থ মাদকসেবীতে পরিনত হয়েছে। মাদক সেবনের অর্থ যোগাতে তার মায়ের অবাধ্য হয় না। আমি এবং আমার মা বাবার বাড়ির অধিকার বঞ্চিত হয়ে কোন খরচ পাতি না পেয়ে দরিদ্র মামার বাড়িতে মানবেতর জীবন যাপন করছি।
মারিয়া আরো জানায় আমি পরিস্থিতির শিকার হয়ে এখানে সবকিছু প্রকাশ করতে বাধ্য হচ্ছি। আমার দাদি আফরোজা বেগম বিভিন্ন সময়ে বলতেন আমি যদি বাড়ি থেকে বেড় না হই তাহলে সৎ দাদার মাধ্যমে শ্রীলতাহানি করাবে। আদালতের নির্দেশ থাকা সত্তেও আমার লেখাপড়া, খাওয়-দাওয়া পোশাকসহ কোনো খরচ তারা বহন করেন না । একপর্যায়ে আমার মা পারিবারিব সুরক্ষা আইনে একটা মামলা করেন। এ মামলায় রায় আমাদের পক্ষে আসে।
শিশু মারিয়া পিতার অধিকার এবং পৈতৃক উত্তরাধীকারী হিসেবে ন্যায্য হিস্যা ও পিতার বসতবাড়িতে থেকে পড়াশুনাসহ সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে প্রশাসশনসহ বর্তমান সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি কামনা করেন মারিয়ার মা রোকসানা খাতুন।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত মেহেদী হাসান বাবু ও তার মায়ের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাদেরকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। তবে অপর অভিযুক্ত মারিয়ার সৎ দাদা মতিয়ার রহমান এর সাথে তার ষৈধের দোকানে গিয়ে কথা হলে তিনি তাদের বিরুদ্ধে সকল অভিযোগ অস্বীকার করে জানান তিনি কোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ি সকল দায়িত্ব গ্রহন করবেন।
বিষয়ে ১নং সাধুহাটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাজী নাজির উদ্দিন ও ৩ নং সাগান্না ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ মোজাম্মেল হোসেন মারিয়ার দাবি ও অভিযোগ সম্পর্কে অবগত আছেন এবং তাদের যৌক্তিক দাবী আদায়ে সকল প্রকার সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host