বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৪:৪৩ অপরাহ্ন
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: newssonarbangla@gmail.com

এমপি’র হাতে কলেজ শিক্ষক লাঞ্চনার ঘটনায় ঝিনাইদহে সমালোচনার ঝড়!

মোঃ শাহানুর আলম, স্টাফ রিপোর্টার
Update : শনিবার, ২১ মে, ২০২২, ৮:৫২ অপরাহ্ন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহ-৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারের হাতে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ সরকারী মাহতাব উদ্দীন ডিগ্রি কলেজের দুই সহকারী অধ্যাপক লাঞ্চনার ঘটনায় জেলা জুড়ে সমালোচনার ঝড় বয়ছে।
এব্যাপারে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীসহ নানা শ্রেনি পেশার মানুষ নিন্দা জ্ঞাপন করেছে। ওই ব্যাপারে ভূক্তভোগী শিক্ষক সাজ্জাদ হোসেন সুষ্ঠু বিচার দাবী করে ঝিনাইদহ পুলিশ সুপার এর নিকট অভিযোগ দিয়েছেন।
উল্লেখ্য যে, গত বৃহস্পতিবার (১৯ মে) বিকালে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ সরকারী মাহতাব উদ্দীন কলেজের দুই সহকারী অধ্যাপক মোঃ মোশারফ হোসেন ও সাজ্জাদ হোসেন, ঝিনাইদহ-৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারের হাতে লাঞ্চিত হয়েছেন। জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে একদল বহিরাগত দুস্কৃতিকারীরা কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোশাররফ হোসেন ও গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাজ্জাদ হোসেনকে শারিরীক ও মানসিক ভাবে লাঞ্চিত করে। কালীগঞ্জ খানা পুলিশকে খবর দেওয়া হলেও তারা ক্যাম্পেসে যাননি বলে অভিযোগ। ফলে বিকাল পর্যন্ত বহিরাগতরা দুদকের কিছু নথি হাতিয়ে নিতে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে কালেজের একটি কক্ষে আটকে রাখে। এই ন্যাক্কার জনক ঘটনার সঙ্গে স্থানীয় সংসদ সদস্য ঝিনাইদহ -৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার এবং কলেজের নন এমপিও ভুক্ত শিক্ষক সুব্রত ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মজিদ মন্ডল জড়িত বলে অভিযোগ উঠে। এ সময় কলেজের দুই কর্মচারী তাপস ও সবুজ ভারভাপ্ত অধ্যক্ষ মোশাররফ হোসেনকে টানা হ্যাচড়া করে। এদিকে শিক্ষক লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনায় শিক্ষক সমাজসহ সূধী মহলের নিকট জেলাজুড়ে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ অব্যাহত থাকে। শিক্ষকরা আন্দোলনের হুমকীও দিয়েছেন। লাঞ্চিত শিক্ষক সাজ্জাদ হোসেন অভিযোগ করেন তিনি তার ডিপার্টমেন্টে জরুরী কাজ করছিলেন। এ সময় স্থানীয় এমপিসহ কিছু বহিরাগত দুস্কৃতিকারীরা তার রুমে প্রবেশ করে এমপি আনার “তুই শিবির করিস” বলে চড় থাপ্পড় মারেন। এতে তিনি গুরুতর ব্যাথা পেয়ে আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হন। কলেজের অধ্যক্ষ ড. মাহবুবুর রহমান বৃহস্পতিবার বিকালে জানান, কলেজ থেকে সরকারী খাতা চুরির বিষয় নিয়ে কারিগরী শিক্ষা বোর্ডের নির্দেশক্রমে একটি চুরির মামলা করা হয় আদালতে। মামলাটি বর্তমান সিআইডি তদন্ত করছে। এই মামলার স্বাক্ষি আছেন গণিত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাজ্জাদ হোসেন। এ কারণে তার উপর ক্ষুদ্ধ আসামীরা বহিরাগতদের ডেকে নিয়ে খাতা চুরি মামলার আসামী রকিবুল ইসলাম মিল্টনসহ অন্যান্যরা তাকে আহত করে। অধ্যক্ষ ড. মাহবুবুর রহমান আরো জানান, কলেজের কাজে সহকারী অধ্যাপক মোঃ মোশাররফ হোসেন কে সাময়িক ভারপ্রাপ্ত দায়িত্ব দেওয়ার পর নন এম পিও ৬১ নং সিরিয়াল ধারী জুনিয়র প্রভাষক সুব্রত কুমার নন্দী ও খাতা চুরির মামলার আসামি সাবেক উপাধ্যক্ষ আব্দুল মজিদ মন্ডল চুরির ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার জন্য বহিরাগত, কলেজের স্টাফ সবুজ ও পিয়ন তাপসের সহায়তায় ত্রাস সৃষ্টিসহ সহকারী অধ্যাপক মোশাররফ কে লাঞ্চিত করে। এ বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোশাররফ হোসেন বলেন, দুদকের একটি ফাইল হাতিয়ে নিতে সুব্রত ও অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আব্দুল মজিদ মন্ডল তাকে অপমান অপদস্ত এমনকি মারধর করতে উদ্যোত হন। কিন্তু এ ধরণের একটি সরকারী ডকুমেন্ট নিতে হলে কালীগঞ্জ ইউএনওর সম্মতি ছাড়া দিতে পারবেন না বলে তাদের সাফ জানিয়ে দেন। বিকাল পৌনে ৫টার দিকে সুবিধা করতে না পেরে তাকে ছেড়ে দেন বলেও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোশাররফ হোসেন জানান। এ বিষয়ে ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার মুন্তাসিরুল ইসলাম অভিযোগ পেয়ে কালীগঞ্জ থানার ওসিকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান।
জেলার শিক্ষক নেতারা কলেজের শিক্ষক লাঞ্চনার ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত স্বাপেক্ষে দোষিদের বিচার দাবি করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host