বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২:০৩ পূর্বাহ্ন
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: newssonarbangla@gmail.com

আদিতমারীতে নদী খননে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ

 মোঃ গোলাপ মিয়া, আদিতমারী (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি
Update : বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১, ৭:৩৩ পূর্বাহ্ন

মোঃ গোলাপ মিয়া, লালমনিরহাট প্রতিনিধিঃ লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)’র অধীনে রত্নাই নদী খননে ব্যাপক অনিয়ম, দুর্নীতি ও সরকারি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়, কাজ শেষ না করেই বরাদ্দের পুরো টাকা উত্তোলনের অভিযোগ উঠেছে ।
জানা গেছে, আদিতমারী উপজেলার ভেলাবাড়ী ইউনিয়নে মহিষতুলি থেকে ঝারির ঝাড় গ্রাম পর্যন্ত তিন কিলোমিটার রত্নাই নদী খননে এক কোটি ৮১ লাখ ১১ হাজার ৭২০ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। গত বছর ২০২০ সালের জুনের মধ্যে নদী খনন কাজ সম্পন্ন করার চুক্তি করেছিল ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামের মোহাম্মদ ইউনুস অ্যান্ড ব্রাদার্স (প্রাইভেট) লিমিটেড। কিন্তু এখনো কাজ অসম্পন্ন রয়েছে। আর কাজ অসম্পন্ন থাকলেও বিল তোলা হয়েছে পুরোটাই।
মহিষতুলি গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আজমত আলী ও কৃষক মফিজুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, খননের আগে রত্নাই নদী ভালো ছিলো। খননের নামে ঠিকাদার ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করেছিলেন এবং তা প্রকাশ্যে বিক্রিও করেছিলেন। খননের নামে   শুধু নদীতে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে এতে নদীর   পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন,
এদিকে এলাকাবাসীর অভিযোগের বিষয়ে আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন ঘটনাস্থলে এসে সে সময় ৪টি ড্রেজার মেশিন জব্দ করে পুড়িয়ে দিয়েছিলেন।
ঝারির ঝাড় গ্রামের আরেক কৃষক সফিয়ার রহমান বলেন, নদীতে সামান্য কিছু খনন করার পর ঠিকাদার খনন মেশিন নিয়ে চলে যায়। এরপর নদী খননের কথা থাকলেও ঠিকাদার সে কাজ করেননি। এলজিইডি’র লোকজনও আসেননি। খননের পর রত্নাই নদী আগের চেয়ে আরো খারাপ অবস্থায় পরেছে বলে তিনি জানান। ৩৫ থেকে ৪০ শতাংশ খনন কাজ হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।
রত্নাই নদীতে খননের নামে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করায় ৪টি ড্রেজার মেশিন জব্দ করে তা আগুনে পুড়িয়ে নষ্ট করার বিষয়ে স্বীকার করেছেন আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন।।

ঠিকাদারের প্রতিনিধি ইকবাল হোসেন দাউদের সাথে কথা হলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, রত্নাই নদীতে চুক্তি অনুযায়ী খনন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। গেল বছরই এ কাজের বিলও উত্তোলন করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

লালমনিরহাট এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফ আলী খান বলেন, ৭৫ থেকে ৮০ শতাংশ খনন কাজ সম্পন্ন হয়েছে। অবশিষ্ট কাজ সম্পন্ন করার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। যদি ঠিকাদার গড়িমসি করেন তাহলে তার জামানতের অর্থ দিয়ে অসম্পন্ন কাজ  করা হবে  বলে তিনি জানান,


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host