বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০১:৫৮ পূর্বাহ্ন
নোটিশ
যে সব জেলা, উপজেলায় প্রতিনিধি নেই সেখানে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। বায়োডাটা সহ নিউজ পাঠান। Email: [email protected]

লালমনিরহাট কর্মহীন মানুষের জেলা প্রশাসকের কাছে ত্রাণের আবেদন

মোঃ গোলাপ মিয়া আদিতমারী (লালমনিরহাট ) প্রতিনিধি
Update : শনিবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২২, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন

মোঃগোলাপমিয়াআদিতমারী(লালমনিরহাট) প্রতিনিধিঃ উত্তরবঙ্গের সীমান্তবর্তী জেলা লালমনিরহাট এই জেলা মানুষ গত ৩ দিন ধরে সূর্যের আলো দেখেন নি। ঘনকুয়াশার আর হালকা বাতাসে    কর্মহীন হয়ে পড়েছে জেলার অধিকাংশ মানুষ । আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায় লালমনিরহাট জেলা সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬.১ ডিগ্রী সেলসিয়াস এই জেলায় সর্বনিম্ন  তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। যা বাংলাদেশের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা সীমান্তবর্তী জেলা লালমনিরহাট।শীতের মৌসুমের শেষ পর্যায়ে  এসে ঘন কুয়াশাঁ হালকা ঝড়ি বৃষ্টি আর তীব্র শীতে লালমনিরহাট জেলা শীত প্রকট আকার ধারণ করেছে। সেই সাথে সাধারণ মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে ঘন কুয়াশার জন্য যানচলাচল অনেকটাই কমে গেছে। মানুষের কষ্ট আর ভুগান্তি  বাড়ছে । শীত মৌসুম বিদায়ের আগে তাপমাত্রা হ্রাস পাওয়ার পাশাপাশি ঘন কুয়াশা এবং কনকনে হিমশীতল বাতাসের প্রবাহ বাড়িয়ে দিয়েছে শীতের তীব্রতা। শিশু ও বৃদ্ধরা এই শীতে ঘর থেকে বেড়াতে পাড়ছে না। অনেকেই খড়কুটো দিয়ে আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন।

শনিবার(২৯ জানুয়ারী) সকাল ৬টায় আবহাওয়া অফিসের যোগাযোগ করার হলে জানাযায় গত শুক্রবার লালমনিরহাটে ৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার কথা নিশ্চিত করে।যা আজ আরো নিম্নমুখী এবং দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ অফিস সুত্র জানায়, গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই লালমনিরহাটে শীতের তীব্রতা লক্ষ করা যায়। এবং শুক্রবার সন্ধ্যায় তাপমাত্রা কমে ৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস আসে। এই তাপমাত্রা শুধু লালমনিরহাটেই নয়,এটি এবছর দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ।এমন অবস্থা থাকে আরো এক সপ্তাহ আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায় ।শীতের তীব্রতা বাড়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। সন্ধ্যার পর জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছেন না। শীতে নাকাল হয়ে পড়েছে বিভিন্ন বয়সের মানুষ। তীব্র শীতে বিপাকে পড়েছেন দৈনন্দিন খেটে খাওয়া কর্মজীবীরা।বিত্তবানরা গরম কাপড় ক্রয় করতে পারলেও নিম্ন আয়ের লোকজনের তা হাতের নাগালের বাইরে। ফলে শীতবস্ত্রের অভাবে দরিদ্র-ছিন্নমূল মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। শীতে বোরো বীজতলা, ভুট্টা, আলু, সবজিক্ষেতসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন অনেকে। এদিকে লালমনিরহাট সদর, আদিতমারী, কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা, পাটগ্রাম,  উপজেলার তিস্তাপাড়ের দিনমুজুর সহ নিম্ন আয়ের জনগণ বলছে । গত তিন দিন থেকে প্রচুর শীত আর কন কনে ঠান্ডা বাতাস হালকা ঝড়ি বৃষ্টি এর আগে হয়নি । লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন ৫ টি উপজেলা প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চল সহ তিস্তা ও নদী এলাকার শীতার্তদের মাঝে খাবার ও কম্বল পৌঁছে দিতে  উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজ করে যাচ্ছে।

লালমনিরহাট সদর হাসপাতাল সহ ৫টি উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স গুলোতে বেড়েছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা। নিউমোনিয়া, সর্দি, কাশি, ডায়রিয়া সহ বিভিন্ন রোগ নিয়ে ভর্তি হচ্ছে মানুষ। এদের মধ্যে শিশুরোগীর সংখ্যা বেশি।লালমনিরহাট জেলা সিভিল সার্জন ডা. নির্মলেন্দু রায় বলেন, শীতজনিত রোগে আক্রান্ত রোগী ভর্তি হচ্ছেন। আমরা যাথাসাধ্য চেষ্টা করছি চিকিৎসা দিচ্ছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
Theme Created By Uttoron Host