Monday, October 21, 2019, 2:06 am

সংবাদ শিরোনাম :
জাতিসংঘের ৭৪তম অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী ‘তথ্য-প্রমাণ পেলে সম্রাটের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা’ যুক্তরাষ্ট্রকে বাড়াবাড়ি না করতে ইরানের হুঁশিয়ারি কুষ্টিয়া সদর থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজু আটক লতা মঙ্গেশকরের গানে বাঁশি বাজিয়ে ভাইরাল তরুণী অবৈধ জুয়ার আড্ডা বা ক্যাসিনো চলতে দেয়া হবে না: ডিএমপি কমিশনার যুবলীগ নেতা খালেদের বিরুদ্ধে ৩ মামলা, গুলশান থানায় হস্তান্তর ১০ টাকার টিকিট কেটে চোখ দেখালেন প্রধানমন্ত্রী এ বছরে প্রায় ৮ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় করেছে ঝিনাইদহ বিআরটিএ ঝিনাইদহে গুলিবিদ্ধ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার, মাদক উদ্ধার সড়ক দুর্ঘটনা থেকে বাঁচার উপায় -মোঃ সালাহউদ্দিন, পুলিশ পরিদর্শক জামালপুরের সেই ডিসি ওএসডি হলেন

অংশ নিতে চান চার প্রার্থী মহাজোটে বিদ্রোহের শঙ্কা

দিনাজপুর-৬ (বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর, ঘোড়াঘাট) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান সাংসদ শিবলী সাদিকের পাশাপাশি দলটির আরও দুজন এবং মহাজোটের শরিক দল ন্যাপের একজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে তাঁরা নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অংশ নিতে চান চার প্রার্থী মহাজোটে বিদ্রোহের শঙ্কা
ফাইল ছবি

দিনাজপুর-৬ (বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর, ঘোড়াঘাট) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান সাংসদ শিবলী সাদিকের পাশাপাশি দলটির আরও দুজন এবং মহাজোটের শরিক দল ন্যাপের একজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে তাঁরা নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। 
গত বুধবার আওয়ামী লীগের সাবেক সাংসদ আজিজুল হক চৌধুরী, নবাবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান এবং সাবেক সাংসদ ন্যাপের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী লুৎফর রহমান চৌধুরী মনোনয়নপত্র জমা দেন। আজিজুল হক চৌধুরী ও আতাউর রহমান, দুজনই আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন এবং কাজী লুৎফর রহমান চৌধুরী মহাজোটের শরিক দল হিসেবে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। 
মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে আতাউর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, বর্তমান সাংসদ ছাড়াও আওয়ামী লীগ থেকে সাবেক সাংসদ আজিজুল হক চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলতাফুজ্জামান মিতা, বিরামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, বিরামপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পারভেজ কবিরসহ আরও কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যান মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। তাঁরা সবাই মূলত বর্তমান সাংসদের বিরুদ্ধে ছিলেন এককাট্টা। আর সে কারণেই তাঁরা মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। আর ন্যাপের কাজী লুৎফর রহমান এককভাবে প্রচারণা চালিয়ে গেছেন। আতাউর রহমান বলেন, মনোনয়নবঞ্চিতরা সবাই একত্র। তাঁরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করবেন। 
মনোনয়নবঞ্চিত কয়েকজন নেতা প্রথম আলোকে বলেছেন, তাঁরা দলের মনোনয়ন পরিবর্তনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। পরিবর্তন না হলে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন। তাঁরা আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করেছিলেন আজিজুল হক চৌধুরী ও মিজানুর রহমান। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চারদলীয় জোটের শরিক জামায়াতের প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়েছিলেন। এবারও একই আশঙ্কা রয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন অথবা রেজিস্টার করুন

© All rights reserved © 2018 Newssonarbangla