Friday, August 23, 2019, 6:00 pm

সংবাদ শিরোনাম :
আসাফো’র আয়োজনে কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন পৌর মেয়রের ছেলে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার শাহজালালে ১০ হাজার ইয়াবাসহ যুবক আটক কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে প্রস্তুত কেরণতলী ঘাট ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর ম্যানেজারকে কুপিয়ে টাকা ও স্বর্ণালংকার লুট কাশ্মীরে গোপনীয়তার ঢাকনা খুলে ফেলুন দিনাজপুরে দু পক্ষের সংঘর্ষে একজন নিহত, আহত ১০ গরু বিক্রির ২৮ লাখ টাকা ছিনতাই, রাস্তায় শুয়ে কাঁদছেন ব্যবসায়ী ডেঙ্গু নিয়ে রাজনীতি করার কিছু নেই : কুষ্টিয়ায় মাহবুব-উল-আলম হানিফ আসাফো খুলনা মহানগর শাখার উদ্যোগে শোক পালন মেহবুবা মুফতি, ওমর আবদুল্লাহকে মুক্তি দেয়ার আহ্বান মমতার

অংশ নিতে চান চার প্রার্থী মহাজোটে বিদ্রোহের শঙ্কা

দিনাজপুর-৬ (বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর, ঘোড়াঘাট) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান সাংসদ শিবলী সাদিকের পাশাপাশি দলটির আরও দুজন এবং মহাজোটের শরিক দল ন্যাপের একজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে তাঁরা নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অংশ নিতে চান চার প্রার্থী মহাজোটে বিদ্রোহের শঙ্কা
ফাইল ছবি

দিনাজপুর-৬ (বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর, ঘোড়াঘাট) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান সাংসদ শিবলী সাদিকের পাশাপাশি দলটির আরও দুজন এবং মহাজোটের শরিক দল ন্যাপের একজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে তাঁরা নির্বাচনে অংশ নেবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। 
গত বুধবার আওয়ামী লীগের সাবেক সাংসদ আজিজুল হক চৌধুরী, নবাবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান এবং সাবেক সাংসদ ন্যাপের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী লুৎফর রহমান চৌধুরী মনোনয়নপত্র জমা দেন। আজিজুল হক চৌধুরী ও আতাউর রহমান, দুজনই আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন এবং কাজী লুৎফর রহমান চৌধুরী মহাজোটের শরিক দল হিসেবে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। 
মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে আতাউর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, বর্তমান সাংসদ ছাড়াও আওয়ামী লীগ থেকে সাবেক সাংসদ আজিজুল হক চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আলতাফুজ্জামান মিতা, বিরামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, বিরামপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পারভেজ কবিরসহ আরও কয়েকজন ইউপি চেয়ারম্যান মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। তাঁরা সবাই মূলত বর্তমান সাংসদের বিরুদ্ধে ছিলেন এককাট্টা। আর সে কারণেই তাঁরা মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। আর ন্যাপের কাজী লুৎফর রহমান এককভাবে প্রচারণা চালিয়ে গেছেন। আতাউর রহমান বলেন, মনোনয়নবঞ্চিতরা সবাই একত্র। তাঁরা সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করবেন। 
মনোনয়নবঞ্চিত কয়েকজন নেতা প্রথম আলোকে বলেছেন, তাঁরা দলের মনোনয়ন পরিবর্তনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। পরিবর্তন না হলে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন। তাঁরা আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেছেন, ২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করেছিলেন আজিজুল হক চৌধুরী ও মিজানুর রহমান। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী চারদলীয় জোটের শরিক জামায়াতের প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়েছিলেন। এবারও একই আশঙ্কা রয়েছে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন..

মন্তব্য করতে লগ ইন করুন অথবা রেজিস্টার করুন

© All rights reserved © 2018 Newssonarbangla