Templates by BIGtheme NET
Home / জাতীয় / বেতাগায় ২৪৫জন জেলেকে স্বাবলম্বি করতে ব্যাপক কর্মপরিকল্পনা গ্রহন

বেতাগায় ২৪৫জন জেলেকে স্বাবলম্বি করতে ব্যাপক কর্মপরিকল্পনা গ্রহন

পি কে অলোকফকিরহাটঅফিস  : বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার বেতাগায় ২৪৫জন নিবন্ধিত জেলেদের ভাগ্যো উন্নয়নে ইউনিয়ন পরিষদ ব্যাপক কর্মপরিকল্পনা গ্রহন করেছেন। এই কর্মপরিকল্পনা গুলি বাস্তবায়িত হলে এঅঞ্চলের পিছিয়ে পড়া দারিদ্র জেলে সমাজগোষ্টি তাদের ভাগ্যো উন্নয়নে আরো একধাপ এগিয়ে যাবে বলে ধারনা করা হচ্ছে। জানা গেছে, সরকার জেলেদের ভাগ্যো উন্নয়নে ব্যাপক কার্যক্রম চালু করেছেন। সে অনুযায়ী তাদের স্বাবলম্বি করার জন্য ব্যাপক সাহার্য্য সহযোগীতা করা হয়েছে। যা এসডিজি (২০২১-ভিশন) বাস্তবায়নে একটি মাইল ফলক হিসাবে তরান্বিত হবে। এদিকে বেতাগা ইউনয়িন পরিষদ তাদের ইউনিয়ন অভ্যান্তরে বসবাসরত ২৪৫জন নিবন্ধিত জেলেদের স্বাবলম্বি করার জন্য ইতি মধ্যে বেশ কয়েকটি পরিকল্পনা গ্রহন করেছেন। এই কর্মপরিকল্পনা গুলি বাস্তবায়িত হলে এঅঞ্চলের জেলে গোষ্টি তাদের ভাগ্যের পরির্র্বতন আসার সম্ভাবনা রয়েছে। স্থ্নাীয়রা বলেছেন, বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের সুযোগ্য চেয়ারম্যান ও স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ স্বপন দাশ জেলেদের স্বাবলম্বি করতে ইতি মধ্যে তাদের নিয়ে বিভিন্ন সভা সমাবেশ করেছেন। সেই সমাবেশে সরকারী ভাবে ছেড়ে দেওয়া ৪টি উন্মুক্ত খালবিল ও জলাশয়ের উৎপাদিত মাছ সুষ্ঠু ভাবে বন্ঠনের মাধ্যমে তাদের-কে স্বাবলম্বি করার চেষ্ঠা করছেন। যারই অংশ হিসাবে তাদেরকে প্রথমে একটি সমবায় সমিতির করার মাধ্যমে তারা নিদিষ্ট একটি সমিতিতে অন্তরভূক্তি হবেন। পরে সভাপতি সম্পাদক ও কোষাধক্ষ্য করে একটি ব্যাংক একাউন্ড খুলে দিবেন। সেই ব্যাংক একাউন্ডে উন্মুক্ত জলাশয়ে ছেড়ে দেওয়া মাছের একটি অংশ তাদেরকে দেওয়ার ব্যাবস্থা গ্রহন করেছেন। সেই মাছ বিক্রয়ের টাকা তাদের ব্যাংক একাউন্ডে রেখে পরবর্তি বছর সরকারের দেওয়া টাকার সাথে যোগ করে এক সাথে মোটা টাকার মাছ ছাড়ার পরিকল্পনা নিয়েছেন। সেই মাছ বিক্রয় করে যে অর্থ তারা সংগ্রহ করবেন সেই অর্থ তাদের সমিতির ব্যাংক একাউন্ডে জমা করে তারা নিজেরা স্বাবলম্বি হবেন। এবিষয়ে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার মোঃ ইফতেখারুল আলমের সাথে আলাপ করা হলে তিনি সংবাদকর্মিদের বলেন, আমরা বেতাগা ইউনিয়নের গোবিন্দদেশাই খাল, পার্শ্বে খালী খাল, গজার খাল ও চাকুলী খালে প্রায় ১০লক্ষ্য টাকার মাছের পোনা অবমুক্ত করেছি। সেখানে এখন যে পরিমান মাছ হয়েছে তাতে তার আনুুমানিক মূল্য প্রায় ৫০/৬০ লক্ষ্য টাকার উপরে হবে। মাছ গুলি প্রথম ধাপে হতদরিদ্র গরিব মানুষের মাঝে বিতরন করে জনগনের আমিষের চাহিদা পূরণ করা হবে। পরবর্তি বকৃত মাছ নিবন্ধিত জেলেদের মাঝে সুষ্ঠু ভাবে বিতরন করা হবে। তিনি আরো বলেন, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বিভিন্ন উন্মুক্ত খালবিল ও জলাশয়ে একই পরিমানে মাছের পোনা অবমুক্ত করেছেন। তারাও যদি বেতাগার মত জেলেদের ভাগ্যো উন্নয়নে সমিতির মাধ্যমে তাদের উন্নতির বিষয় নিয়ে কাজ করতো তাহলে জেলেরা আরও স্বাবলম্বি হতো বলে তার ধারনা। তিনি বাকি অন্যান্য ইউনিয়নকে বেতাগার মত কাজ করার জন্য আহবান জানান।সম্পাদনা : সাইফুল

Social Media Sharing

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful